নেত্রকোণায় সাপের ছবি দিয়ে ফেসবুকে ছড়ানো হচ্ছে গুজব, আতংকে মানুষ

প্রকাশিত: ২:০৬ অপরাহ্ণ, জুন ২২, ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
দেশব্যাপী এখন আতংক ও আলোচনায় বিষধর সাপ রাসেলস ভাইপার। দেশের বিভিন্ন স্থানে মানুষের মাঝে এই সাপের আতংক বিরাজ করছে। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই সাপ নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা।

এবার নেত্রকোনার দুর্গাপুরেও রাসেলস ভাইপার সাপ দেখা দিয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে (ফেসবুক) গুজব ছড়ানোর ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার দুপুর থেকে কয়েকটি ফেসবুক আইডিতে দুর্গাপুর উপজেলার চন্ডিগড় ইউনিয়নের ফেচিয়া উত্তরপাড়া গ্রামে রাসেলস ভাইপার সাপের দেখা মিলার ছবি ও লিখা প্রচারিত হয়।

এসব পোস্ট দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। ফেসবুকে এসব ছড়িয়ে পড়লে অনেকেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। ছড়িয়ে পড়া লিখাতে দেখা যায় (হুবহু তুলে ধরা হলো), “রাসেল ভাইপার এবার দেখা মিললো দুর্গাপুর উপজেলা চন্ডিগড় ইউনিয়ন ফেচিয়া উত্তরপাড়া গ্রামে। রমজান নামক এক ব্যক্তির মাছ ধরার জালে আটকা পরার পর তিনি সাপটিকে পিটিয়ে হত্যা করেন। এলাকার সর্বস্তরের মানুষকে সাবধানে চলাচল করার সতর্ক বানী জানানো হল।”

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় পরিবেশ ও বন্য প্রাণী রক্ষায় সেচ্ছাসেবী সংগঠন বলছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুক) ছড়ানো মৃত রাসেলস ভাইপার নামের সাপটি মূলত একটি অজগর সাপের ছবি অন্য একটি ছবি রাসেলস ভাইপার সাপের ছবি হলেও ঘটনাটি গুজব। উপজেলা প্রশাসন বলছে, গুজব ছড়ানো ব্যক্তিদের সনাক্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ফেচিয়া গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের গ্রামে রাসেলস ভাইপার সাপ ধরা পড়েছে এমন ঘটনা কেউ শুনেননি। তারাও জানান এটা গুজব।

স্থানীয় পরিবেশ ও বন্য প্রাণী রক্ষায় সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সভাপতি রিফাত আহমেদ জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হাফেজ আবদুল মালেক নামের একটি ফেসবুক আইডির পোস্টে দুর্গাপুর উপজেলার চন্ডিগড় ইউনিয়নের ফেচিয়া গ্রামে রাসেলস ভাইপারের হত্যার বিষয়টি নজরে এলে যাচাই বাচাই করে দেখা গেছে পুরোপুরি ভিত্তিহীন ও গুজব। মূলত এটি একটি অজগর সাপ। ২০২১ সাল থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত দুর্গাপুর ও কলমাকান্দায় আমরা ১৯টি অজগর সাপ উদ্ধারের পর বনে অবমুক্ত করেছি। দুর্গাপুরে এখন পর্যন্ত রাসেলস ভাইপার সাপের দেখা মেলেনি। বর্তমানে যে রাসেলস ভাইপার সাপ ধরার ঘটনাটির গুজবে কান না দেওয়ার অনুরোধ জানান তিনি।

চন্ডিগড়ের বাসিন্দা রশিদ মিয়া জানান, যারা এই অপপ্রচার চালাচ্ছে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা উচিত। মিথ্যা ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে মানুষের মনে আতংক সৃষ্টি করা মোটেও ভালো কাজ নয়।

চন্ডিগড় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান এমদাদুল হক আলম সরকার বলেন, আমি স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলেছি ওই এলাকায় রাসেলস ভাইপার সাপ ধরার কথা সত্যি না। ঘটনাটি সম্পূর্ন একটি গুজব।

দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এম রকিবুল হাসান জানান, দুর্গাপুরে রাসেল ভাইপার সাপের দেখা মিলার ঘটনাটি সঠিক নয়। যারা এ ধরনের গুজব ছড়াচ্ছে তাদের সনাক্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।