সব
facebook netrokonajournal.com
পূর্বধলা সরকারি কলেজে অতিরিক্ত ভর্তি ফি আদায়সহ নানা অনিয়মের অভিযোগ | নেত্রকোণা জার্নাল

পূর্বধলা সরকারি কলেজে অতিরিক্ত ভর্তি ফি আদায়সহ নানা অনিয়মের অভিযোগ

প্রকাশের সময়:

পূর্বধলা সরকারি কলেজে অতিরিক্ত ভর্তি ফি আদায়সহ নানা অনিয়মের অভিযোগ ফাইল ছবি

ads1

মো:এমদাদুল ইসলাম,পূর্বধলা প্রতিনিধি: নেত্রকোনার পূর্বধলা সরকারি কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তিতে অতিরিক্ত টাকা আদায়, প্রমানপত্র নিয়ে ভর্তির হয়রানী,ভর্তি ফরম বিক্রি,অবসর প্রাপ্ত শিক্ষকদের বেতন না দেয়া,আপত্তিজনক অডিট গভর্নিং বডিতে না উটা, অনিয়ম ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন ইত্যাদি নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। আন্তঃশিক্ষা বোর্ডের জারি করা ভর্তির প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ আছে, সেশন চার্জসহ ভর্তি ফি মফস্বল/পৌর (উপজেলা) এলাকায় ১০০০ টাকার বেশি হবে না। কিন্তু শিক্ষা বোর্ডের নিয়মনীতিকে তোয়াক্কা না করে অতিরিক্ত ভর্তি ফি গ্রহণের অভিযোগ রয়েছে ওই কলেজের কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। আর একটি আন্ত শিক্ষা বোর্ডের জারি করা ভর্তির প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ আছে কোভিট-১৯ জন্য ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট বা প্রমান পত্র ছাড়া  ভর্তি করা যাবে সেখানেও নিয়মনীতিকে তোয়াক্কা না করে সকল দলিল পত্র সহ নিয়ে হয়রানি করেছেন ভর্তিকৃত সকল শিক্ষার্থীকে।

কলেজের রশিদ

ভুক্তভোগী বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী জানায়, উপজেলা সদরের পূর্বধলা সরকারি কলেজে চলতি বছর প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে অনলাইন প্রসেসিং ফি, ভর্তি ফি, ভর্তিকরণের নামে একাদশ শ্রেণির ভর্তির ক্ষেত্রে শিক্ষার্থী প্রতি মানবিক,ব্যবসায় শিক্ষা, বিজ্ঞান ও বিএম শাখায় ১ হাজার ৫শ’ টাকা করে নেয়া হচ্ছে। এছাড়া ভর্তি ফরম বাবদ আরও ২শ’ টাকা অতিরিক্ত নেয়া হচ্ছে। গরীব, অসহায়, মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীর ভর্তির ক্ষেত্রেও কোনো ছাড় দেয়া হয়নি। কলেজ কর্তৃপক্ষের ধার্য টাকার স্থলে কম দিলে ওই শিক্ষার্থী ভর্তি হতে পারে নাই।
পূর্বধলা সরকারি কলেজে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থী নাজমা খানম, মেহেদী হাসান, নাহিদ শেখ বলেন, আমাদের কাছ থেকে ভর্তি বাবদ রসিদ মূলে ১ হাজার ৫শ’ টাকা ও ফরম বাবদ আরও ২শ’ টাকা নিয়েছে। আমরা যতদূর জেনেছি অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের এ বিষয়টি মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রে উল্লেখ নেই। সুতরাং এগুলি বিধি বহির্ভূত।কলেজ অফিস সুত্রে জানা যায় এ বছর ২১ সেপ্টেম্বও ভর্তির শেষ দিন পর্যন্ত সকল শাখায় সর্বমোট ১০৫৩ জন ভর্তি হয়েছে। প্রত্যেকের নিকট থেকে ফরম বাবদ ২০০ টাকা করে মোট ২,১০,৬০০ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে যা কলেজের কোন খাতে জমা হয়নি। কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো: আনোয়ারুল হক ভর্তি কমিটির ৩ সদস্যসহ অর্থ বন্টন করে সুবিধা নিয়েছে।বিগত বছর একাদশ ও দ্ধাদশ শ্রেণিতে ভর্তি, ফরম পুরনে অতিরিক্ত টাকা আদায় করার কারনে মানববন্ধন সহ সংবাদ মাধ্যম ইত্তেফাক, দিনকাল, আমাদের কন্ঠ, বাংলার আওয়াজ, প্রতিবাদ,এফ এন এস, পূর্বকন্ঠ, প্রতিদিনের কাগজ, বাংলাদেশের খবর, দুর্জয় বাংলা, পূর্বময়, তৃতীয়মাত্রা, দর্পন পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছিল এবং কোন অজানা কারনে বিষয়টি ধামাচাপা পড়ে যায়।

কলেজ কর্তৃক জারিকৃত বিজ্ঞপ্তি

এই বিষয়ে ভর্তি কমিটির আহবায়ক মোফাজ্জল হোসেন খান বলেন, ভর্তি সংক্রান্ত ব্যাপারে অতিরিক্ত কোন টাকা নেয়া হচ্ছে না।তবে ফরম বাবদ যে টাকা নেয়া হয়েছে তা বরাবরই ভর্তি কমিটি বন্ঠন নিয়ে থাকে।
যেহেতু কলেজটির জিও জারি করা হয়েছে সেখানে কলেজ উন্নয়ন খাত ছাড়া কোনো কমিটি বা ব্যক্তি বোর্ড কতৃক অর্থ ছাড়া টাকা বন্ঠন করে নেয়া সরকারি বিধি বহির্ভূত।
এ বছর নির্ধারিত ফি ভর্তি ও সেশন চার্জ ১০০০,টিউশন ফি ১৫০,উন্নয়ন ফি ২০০,অত্যাবশ্যকীয় কর্মচারি ১০০,মসজিদ ৫০ টাকা ধার্য করে উত্তোলন করেছেন।অথচ ভর্তির ফরম বাবদ বোর্ড থেকে অনলাইন চার্জ আসে ৫০%। শিক্ষার্থীদেও থেকে প্রাপ্ত সকল টাকা কলেজ উন্নয়ন খাতে না দিয়ে শুধু কমিটি বন্টন করে নিয়ে যায়। অভিযোগ রয়েছে এই কলেজের অধ্যাপক সামছুউদ্দনি আহমদ, অধ্যাপক মাহফিজ উদ্দিন, অধ্যাপক মীর মতিউর রহমান, ২০১৬ সালে অবসর গ্রহণ করেন। তাদের কলেজে এখন পর্যন্ত ৪৪ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে।যেগুলি নানা অজুহাতে বর্তমান (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষ মো: আনোয়ারুল হক প্রদান করছেন না। এছাড়া তিনি নিজে ১৯৯৫ সালে প্রভাষক, ২০১০ উপাধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করার পর প্রভাষক পদের বেতন বন্ধ হয়ে যায়। যা ২০১৮ তে (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ ও হস্তান্তর ছারাই দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এবং পরবর্তীতে ২০১৮ তে তিনি তার বন্ধ হয়ে যাওয়া সমুদয় বকেয়া উত্তোলন করে নেন। অথচ ব্যাংকে টাকা নেই বলে নানা অজুহাতে অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক দের বেতন প্রদান করেন না।তাছাড়া ২০১৫ সালের ৪৩২ নং স্মারকে তরুণ কুমার রায়কে আহ্বায়ক করে অভ্যন্তরীণ অডিট করা হয় যেখানে ৪১ লক্ষ ৫৬ হাজার ৯৬৫ টাকার আপত্তিজনক ব্যয় ছিল যা অজ্ঞাত কারণে সেই রির্পোটটি গভর্নিং বডির মিটিং এ এখন পর্যন্ত উপস্থাপন করা হয়নি।
এ প্রসঙ্গে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আনোয়ারুল হক রতন বলেন, একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্বান্ত মোতাবেক ভর্তি কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। তাছাড়া বোর্ডের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী ভর্তির টাকা নেয়া হচ্ছে। অতিরিক্ত কোনো টাকা আদায় করা হচ্ছে না।তিনি রাগে বলেন বাশতো দিয়েই যাচ্ছেন আর উত্তর দিয়ে লাভ কি? যা করার করেন গিয়ে।
কলেজের কো-সিগনেটর ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) উম্মে কুলসুম বলেন, এ বিষয় খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ads1

আপনার মতামত লিখুন :

 ফেসবুক পেজ

 আজকের নামাজের ওয়াক্ত শুরু

    নেত্রকোণা, ময়মনসিংহ, ঢাকা, বাংলাদেশ
    বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২
    ২ Rabi' I, ১৪৪৪
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ৪:৩৪ পূর্বাহ্ণ
    সূর্যোদয়ভোর ৫:৪৯ পূর্বাহ্ণ
    যোহরদুপুর ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ
    আছরবিকাল ৩:১৪ অপরাহ্ণ
    মাগরিবসন্ধ্যা ৫:৪৯ অপরাহ্ণ
    এশা রাত ৭:০৪ অপরাহ্ণ
৩৩৩-এ জরুরী সেবা দিয়ে সম্মননা পেলেন পূর্বধলার নারান্দিয়া ইউডিসি উদ্যোক্তা আল-আমীন

৩৩৩-এ জরুরী সেবা দিয়ে সম্মননা পেলেন পূর্বধলার নারান্দিয়া ইউডিসি উদ্যোক্তা আল-আমীন

পূর্বধলায় অটো মেজর এন্ড হাসকিং মিল মালিক সমিতির সম্পাদক সাখি কে সংবর্ধনা

পূর্বধলায় অটো মেজর এন্ড হাসকিং মিল মালিক সমিতির সম্পাদক সাখি কে সংবর্ধনা

পূর্বধলা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অসহায়দের টিন, নগদ অর্থ ও খাবার প্রদান

পূর্বধলা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অসহায়দের টিন, নগদ অর্থ ও খাবার প্রদান

নেত্রকোণা জেলা পরিষদ নির্বাচনে পূর্বধলা থেকে সদস্য প্রার্থী এড. মোশাররফ হোসেন শেখ

নেত্রকোণা জেলা পরিষদ নির্বাচনে পূর্বধলা থেকে সদস্য প্রার্থী এড. মোশাররফ হোসেন শেখ

পূর্বধলায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী পেল সমাজ সেবার ঋণ

পূর্বধলায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী পেল সমাজ সেবার ঋণ

পূর্বধলায় বিভিন্ন কাজ পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ

পূর্বধলায় বিভিন্ন কাজ পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ

সর্বশেষ সংবাদ সর্বাধিক পঠিত
 
উপদেষ্টা সম্পাদক : দিলওয়ার খান
সম্পাদক ও প্রকাশক : মুহা. জহিরুল ইসলাম অসীম  
অস্থায়ী কার্যালয় : এআরএফবি ভবন, ময়মনসিংহ রোড, সাকুয়া বাজার, নেত্রকোণা সদর, ২৪০০ ।
ফোনঃ ০১৭৩৫ ০৭ ৪৬ ০৪, বিজ্ঞাপনঃ ০১৬৪৫ ৮৮ ৪০ ৫০
ই-মেইল : netrokonajournal@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।