সব
facebook netrokonajournal.com
প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি লেঙ্গুড়া | নেত্রকোণা জার্নাল

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি লেঙ্গুড়া

প্রকাশের সময়:

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি লেঙ্গুড়া

কলমাকান্দা থেকে রীনা হায়াৎঃ
নেত্রকোণার কলমাকান্দা উপজেলার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক লীলাভূমি লেঙ্গুড়া ইউনিয়ন । উত্তর সীমান্তবর্তী জেলা নেত্রকোণার কলমাকান্দা থানার অন্তর্ভুক্ত একটি ইউনিয়ন।

যাহার উত্তরে ভারতের মেঘালয় রাজ্য ও সুবিস্তীর্ণ সবুজ প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর একটি পাহাড়ী জনপদ। খুব কাছে থেকে এই মেঘালয় পাহাড়ের সৌন্দর্য উপভোগ করার মত একটি মনোরম স্থান লেঙ্গুড়া।
গারো, হাজং, হিন্দু, খৃষ্টান ও মুসলিমের ভ্রাতৃত্বের চিরবন্ধনে আবদ্ধ এই লেঙ্গুড়া ইউনিয়ন ।

নানা ধর্ম বর্ণ ও গোত্রের লোকজন বসবাস করে এখানে। তাদের মধ্যে সাম্প্রদায়িক কোন মনোভাব নেই। এক সম্প্রদায়ের ধর্মীয় ও সামাজিক কৃষ্টিকালচার অনুষ্টানে অন্য সম্প্রদায়ের লোকজন আনন্দচিত্তে অংশগ্রহণ করে থাকে।

এ ছাড়াও এই ইউনিয়ন ঘিরে টংক আন্দোলনের আত্মাহুতির ইতিহাস বিজড়িত স্থান হিসেবে চিহ্নিত।
১৯৪৯ সালে সুসং মহারাজের বিরুদ্ধে কমরেড মনি সিংহের নেতৃত্বে এক দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলে এই পরগনার নিপিড়ীত জনগন।

তারই লেশ ধরে লেঙ্গুড়াতেও টংক আন্দোলনের দানা বাধে। কমরেড রাশিমনি হাজং এর নেতৃত্বে হাজার হাজার হাজং সম্প্রদায়ের লোকজন লেঙ্গুড়া ই,পি,আর ক্যাম্প ঘেরাও করলে ইপিআরের গুলিতে শত শত লোক মারা যায়, তাদেরকে পুরাতন ইউনিয়ন পরিষদ ভবন সংলগ্নে গণকবরে সমাহিত করা হয়।

১৯৭১ এর গৌরবময় মুক্তিযুদ্ধের শহীদ বীর সেনানিরা চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন লেঙ্গুড়ার মাটিতে। রক্তঝরা ১৯৭১ সালের ২৬ শে জুলাই দিনটি কলমাকান্দাবাসীর জন্য এক হ্নদয় বিদারক দিন। সেইদিন নাজিরপুর পাক হানাদার বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে লিপ্ত হন আমাদের গর্বিত বীর মুক্তিযোদ্ধারা।

পাক হানাদারের গুলিতে সেদিন নিহত হন-আব্দুল আজিজ, ফজলুল হক, ইয়ার মাহমুদ, ভবতোষ চন্দ্র দাস, নুরুজ্জামান, দ্বিজেন্দ্র চন্দ্র বিশ্বাস ও জামাল উদ্দিন। এছাড়াও যুদ্ধে মর্টারের সেলিংয়ে গৌরীপুরের একই পরিবারের ফালানী খাতুন, রাবেয়া খাতুন এবং আসিয়া খাতুনের মৃত্যু হয়েছিল। যুদ্ধের শেষে তাদেরকে সমাহিত করা হয় ফুলবাড়ি গ্রামের বাংলাদেশের ১১৭২ পিলার সংলগ্নে। প্রতি বছর এ দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়ে আসছে।

এছাড়াও সম্ভাবনাময় স্থলবন্দরের স্থান হিসাবেও ধরে নেয়া হয় এই লেঙ্গুড়া ইউনিয়নকে। বাংলাদেশের সীমান্ত পিলার নং ১১৭২ থেকে মাত্র ৭/৮ কি,মি উত্তরে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের সর্ব বৃহৎ নংগাল কয়লা খনিটি অবস্থিত। নংগাল থেকে উত্তোলিত কয়লা ট্রাকে করে ৪০/৫০ কি,মি, পথ অতিক্রম করে সুনামগঞ্জ জেলার তাহেরপুর উপজেলার রড়ছড়া স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে আমদানি হচ্ছে যাহা পরিবহনে বাংলাদেশ এবং ভারত উভয় দেশের আমদানী ও রপ্তানিকারকদের অত্যন্ত ব্যয়বহুল।

যাহা লেঙ্গুড়া স্থলবন্দর প্রতিষ্টিত হলে প্রতি মে,টন কয়লা পরিবহনের জন্য কমপক্ষে ১০০০ টাকা পরিববন ব্যায় বাঁচানো সম্ভব হবে। তাছাড়া আমদানীকৃত মালামাল বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করতেও পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা পাওয়া যাবে,জনশক্তিও সহজে পাওয়া যাবে। সর্বদিক বিবেচনা করলে লেঙ্গুড়া স্থলবন্দরের জন্য একটি সম্ভাবনাময় স্থান হিসাবে পরিগনিত হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

 ফেসবুক পেজ

 আজকের নামাজের ওয়াক্ত শুরু

    নেত্রকোণা, ময়মনসিংহ, ঢাকা, বাংলাদেশ
    সোমবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২২
    ৪ Jumada I, ১৪৪৪
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ৫:০২ পূর্বাহ্ণ
    সূর্যোদয়ভোর ৬:২২ পূর্বাহ্ণ
    যোহরদুপুর ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ
    আছরবিকাল ২:৫০ অপরাহ্ণ
    মাগরিবসন্ধ্যা ৫:১১ অপরাহ্ণ
    এশা রাত ৬:৩০ অপরাহ্ণ
চোখের কোণেই সচিত্র নেত্রকোণা

চোখের কোণেই সচিত্র নেত্রকোণা

নেত্রকোণায় ঐতিহাসিক নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস পালিত

নেত্রকোণায় ঐতিহাসিক নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস পালিত

নেত্রকোণার নামকরনের ইতিহাস ও ঐহিত্য : হায়দার জাহান চৌধুরী

নেত্রকোণার নামকরনের ইতিহাস ও ঐহিত্য : হায়দার জাহান চৌধুরী

পূর্বধলায় নান্দনিক ও দর্শনীয় ঐতিহ্যবাহী রাজধলা বিল : প্রয়োজন সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

পূর্বধলায় নান্দনিক ও দর্শনীয় ঐতিহ্যবাহী রাজধলা বিল : প্রয়োজন সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

আজই ঘুরে আসুন পঞ্চগড়ের কাঞ্চনজঙ্ঘা

আজই ঘুরে আসুন পঞ্চগড়ের কাঞ্চনজঙ্ঘা

উত্তরাঞ্চলের নৈসর্গিক পর্যটন কেন্দ্র দূর্গাপুর: জসীম কিবরিয়া

উত্তরাঞ্চলের নৈসর্গিক পর্যটন কেন্দ্র দূর্গাপুর: জসীম কিবরিয়া

সর্বশেষ সংবাদ সর্বাধিক পঠিত
 
উপদেষ্টা সম্পাদক : দিলওয়ার খান
সম্পাদক ও প্রকাশক : মুহা. জহিরুল ইসলাম অসীম  
অস্থায়ী কার্যালয় : এআরএফবি ভবন, ময়মনসিংহ রোড, সাকুয়া বাজার, নেত্রকোণা সদর, ২৪০০ ।
ফোনঃ ০১৭৩৫ ০৭ ৪৬ ০৪, বিজ্ঞাপনঃ ০১৬৪৫ ৮৮ ৪০ ৫০
ই-মেইল : netrokonajournal@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।