সব
facebook netrokonajournal.com
বিরহী কবি মাজেদুল হক | নেত্রকোণা জার্নাল

বিরহী কবি মাজেদুল হক

প্রকাশের সময়:

বিরহী কবি মাজেদুল হক

বিরহী কবি মাজেদুল হক
মাজেদুল হক। পূর্ণ নাম- শেখ মোহাম্মদ মাজেদুল হক বা এস,এম,মাজেদুল হক ওরফে মাজেদ, সাহিত্যাঙ্গণে সু-পরিচিত নাম- মাজেদুল হক, “বিরহী কবি” হিসেবে তিনি সমধিক খ্যাত ও সমাদৃত।

কবি মাজেদুল হক বৃহত্তর ময়মনসিংহের নেত্রকোণা জেলার সদর উপজেলাধীন ১১ নং কে,গাতি ইউনিয়নের পাটলী গ্রামে ৩ জুলাই (১৯ আষাঢ়) ১৯৭৭ ইং জন্মগ্রহণ করেন। পিতা – এস,এম কিতাব আলী, মাতা- বেগম আয়েশা খাতুন।

পেশায় কবি প্রথমে ব্র‍্যাক এর সেবা প্রোগ্রামে চাকুরী করেন পরে লাইভস্টক ফিল্ড ফ্যাসিলিটেটর (প্রাণিসম্পদ) কর্মরত। এ ছাড়াও বিভিন্ন সেচ্ছাসেবী সংগঠনে কবির পদচারণায় এলাকার উন্নয়নে অগ্রণী ভুমিকা অব্যাহত রয়েছে।

চার ভাই-বোনের মধ্যে কবি, মা-বাবার প্রথম পুত্র দ্বিতীয় সন্তান। কিশোর বয়স থেকেই কবির লেখার হাতেখড়ি, কবি মাজেদুল হক, কবিতা, ছড়া, গান,প্রবন্ধ ও উপন্যাস লিখছেন। বি,এ, অধ্যয়নরত অবস্থায় তাঁর লেখা পত্রিকা ও ম্যাগাজিনে প্রথম প্রকাশিত হয়েছে, এখনও নিয়মিত বিভিন্ন ম্যাগাজিনে, জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে। কবির কবিতা ও ছড়া আবৃত্তি করে প্রতি বছর স্কুল, কলেজের ছাত্র-ছাত্রী অর্জন করছে বার্ষিক পুরষ্কার। এমন অর্জনে কবি হচ্ছেন সুনামের ভাগিদার। কবির সুনাম ছড়িয়ে পড়ছে চারদিকে। দিন দিন বেড়েই চলেছে কবির পাঠক প্রিয়তা, অসংখ্য পাঠক এখন কবির প্রশংসায় পঞ্চমুখী।

ইতিমধ্যে কবির লেখা – ১। কাব্য বলাকা ২। স্বদেশের মায়া ৩। স্বপ্ন দিগন্ত ৪। ফুলঝুড়ি ৫। নেত্র চয়ন ৬। নির্বাচিত একশো কবিতা ৭। বৃহত্তর ময়মনসিংহের কবিতা ৮। হাজার কবির কবিতা, নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে এসব সাহিত্য সংকলনে।

কবির লেখায় অসহায় বঞ্চিত মানুষের কষ্টের আর্তনাদ ও প্রীতি প্রণয়ের বিরহ ব্যথা ওঠে এসেছে তাই পাঠক মহলে এখন তিনি “বিরহী কবি” হিসেবে পরিচিত এবং সমধিক খ্যাত ও সমাদৃত।

“চোখের জলে নদী” কবির প্রথম একক কাব্য গ্রন্থ। কাব্য গ্রন্থের নাম শুনেই বুঝা যায় তিনি একজন বিরহী কবি। কবির প্রথম একক কাব্য গ্রন্থ টি পেয়েছে খুবই পাঠক প্রিয়তা। চোখের জলে নদী কাব্যগ্রন্থের প্রত্যেকটি কবিতাই কাব্যময় রীতিসিদ্ধ শৈল্পিক চিত্রকল্পের সমাহারে ছন্দের কারুকার্য।

“চোখের জলে নদী” কাব্যগ্রন্থের ভুমিকায় বহু গ্রন্থের প্রণেতা, কবি ও কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক ননী গোপাল সরকার লিখেছেনঃ- “সাধক প্রাণে নীরব সযতনে যদি কষ্টের প্রকাশ, তবে তো তিনিই – “বিরহী কবি” – জগতে প্রকাশ।

“চোখের জলে নদী” কাব্যগ্রন্থের পাঠ প্রতিক্রিয়ায় নিজ ভাষায় খুবই সুন্দর ও নিখুঁত ভাবে বিচার বিশ্লেষণ করতে গিয়ে কবি ও প্রাবন্ধিক প্রভাষক তিতাস আহমেদ লিখেছেনঃ- “কবি মাজেদুল হকের কবিতার ব্যাখ্যা সূক্ষ্ম ও বিশ্লেষণাত্মক।”
*”মাজেদুল হক বাংলা সাহিত্যের একজন সার্থক কবি।”
*”কবির কবিতাই প্রমাণ করে তিনি বাংলা সাহিত্যে সু-প্রতিষ্ঠিত ” বিরহী কবি “।

কবি, সাংবাদিক ও কলামিস্ট মুহা.জহিরুল ইসলাম অসীমের ভাষায় – “বাংলা সাহিত্যে যাহার আগমন সার্থক, তিনি হলেন “বিরহী কবি মাজেদুল হক”।

বিরহী কবির কবিতা থেকেঃ-
* বিধির কিযে বিধান পারি না বুঝিতে,
প্রিয়জন কেড়ে নিল কঠোর নীতিতে ;
ব্যথার দু’টি পাহাড়,
শুধু হাহাকার-
সে কাঁদে আমিও কাঁদি ব্যথিত দু’জন,
বিয়ের নামে হয়েছে সে অপহরণ

* থাকিতে হায়াৎ ,
কভু দু’জনে কি হবে সাক্ষাৎ ?
নিয়ে গেল তাঁকে নিদয়ার মত,
সে তাকায় ফিরে তাই চেয়ে তাকি হৃদয়ে রয়েছে ক্ষত !

* প্রীতির বন্ধন,
কেন হয়েছে এমন ?
দু’জন আছি দু’দেশে কিযে অপরাধে,
দু’জনের হৃদয় যে এখনও কাঁদে ।

কবির লিখা শিশুতোষ ছড়াঃ-

” পড়তে হবে “
-মাজেদুল হক

ছুটির দিনে মনের সুখে
চলছে খোকা মাঠে,
বাবার সাথে দিন দুপুরে
ইচ্ছে মতো খাটে।

মাঠের ধূলি খোকার গায়ে
সবই গেলো মেখে,
এখন খোকা কাজের ছেলে
হাসছে বাবা দেখে।

রোদের তাপে ঘামছে খোকা
বাবায় বলে রাখো,
গাছের ছায়া জুড়ায় দেহ
একটু বসে থাকো।

বুঝায় বাবা পড়তে হবে
রাখিস মনে খোকা,
মূর্খ হলে সুযোগ বুঝে
দেয় মানুষে ধোকা।

” ভূতের বাড়ি “
– মাজেদুল হক

পুকুর পাড়ে ঝোপের দ্বারে
ঐ যে তেঁতুল গাছে,
রাত নিশিতে পায় দেখিতে
ভূত-প্রেতিনি নাচে।

মনের ভয়ে বউ-ঝি লয়ে
দেয় না এ পথ পারি,
বলছে সবে এটাই তবে
হয়তো ভূতের বাড়ি।

জোয়ান নারী রঙিন শাড়ি
সেদিন গেলো পরে,
ভূতের নজর করছে আছর
রয় না এখন ঘরে।

ওঝায় গিয়ে ঝাড়-ফুঁক দিয়ে
বলছে এটা দৃষ্টি,
ডাক্তার বলে টেনশন হলে
হয় মনোরোগ সৃষ্টি।

” আযান “
– মাজেদুল হক

আযান শোনে চমকে উঠি
সময় হলো তাই,
জলদি গিয়ে ওজু করে
নামাজ পড়ি ভাই।

প্রতি ওয়াক্তে ঐ মসজিদে
আযান শোনা যায়,
মনের মাঝে নবীর প্রেমে
জোয়ার ওঠে তায়।

সুরের ধ্বনি মধুর খণি
আযান সুধাময়,
প্রিয়ার মতো বিনয় করে
ডাকছে মনে হয়।

আযান শোনে পরাণ কাঁদে
ভুল করেছি সব,
নামাজ পড়ে চাইব ক্ষমা
মাফ করে দাও রব।

বিরহী কবির লিখা আধুনিক গানঃ
কথা ছিল আমার হয়ে আসবে আমার ঘরে।
এখন তুমি বসত করো অন্য জনের ঘরে।।
প্রিয়জন হলেও আমি এখন তোমার পর
নিজের হাতে সাজিয়েছো অন্য জনের ঘর
শতবার ডাকিলেও আর তুমি আসবে না আমার বাসরে।।
বিধির বিধান এতই নিধান অদৃষ্টের ফল
তুমি হয়তো সুখে আছো আমার চোখে জল
কি আর হবে তোমায় দোষে এখন দোষী ভাগ্যটারে।।

কবির লিখা রাই বিচ্ছেদী গানঃ-
কে বলে সই কৃষ্ণ কালো ?
আমার চোখে লাগে যেন
জোসনা রাতে চাঁদের আলো।।
লোকে বলুক যতই কালা
আমার চোখে লাগে ভালা
তাঁর গলায় দেব ফুলের মালা
পরের কথায় কি বা হলো।।
বলুক লোকে যতই মন্দ
তাতে আমার হয় আনন্দ
সে আমার প্রেমানন্দ
তা-হারে আমি বাসি ভালো।।
মাজেদুল হক বিরহী কবি
চোখে ভাসে তাহার ছবি
শপে দিলাম তারে সবি
শ্যাম কালার মন ভালো।।

কবির লিখা বিচ্ছেদী গানঃ-
আমি হইতে পারলাম না বন্ধুর মনেরই মতো।
মনের মতো হইলে কি আর অভিমান করিতো।।
রূপে গুণে হইতাম যদি আকাশেই চাঁদ
আমায় দেখে মিঠাইতো বন্ধু মনেরই স্বাদ
পূর্ণিমা রাতে আমায় চাহিয়া দেখিতো।।
হইতাম যদি মণি মুক্তা জহর ও কাঞ্চন
আমায় আদর করিয়া বন্ধু করিতো চুম্বন
মালা বানাইয়া বন্ধুর গলায় দিতো।।
দেখতে বেশি ভালো না রূপ নাই বেশি
আমায় ছেড়ে বন্ধু এখন হইলো রে বৈদেশি
কবি মাজেদুল হক তাঁরে পাইলে
প্রেমের স্বাদ মিঠাইতো।।

কবির লিখা ইসলামি গানঃ-
তোরা কে যাবে আয়,
আমি যাব মক্কা মদিনায়।
জিয়ারত করব গিয়ে নবীর পাক রওজায়।।
সত্য বাণী ইসলাম ধর্ম করিতে প্রচার
কুরাইশ বংশে জন্ম নিলেন নবীজি আমার
পিতা আব্দুল্লাহ মা আমেনার
গর্ভে এলো দুনিয়ায়।।
বে- দ্বীনের অত্যাচারে নবী মোহাম্মদ
মক্কা থেকে মদিনায় করিল হিজরত
পাইলেন তিনি নবুয়ত
বে- দ্বীনেরা করল আঘাত নবীর গায়।।
বলে কবি মাজেদুল হক
মোরাকাবায় ধ্যানে সাধক
দেখতে পাবে নূরের ঝলক
দিদার পাবে ফানা ফিল্লায়।।

কবি মাজেদুল হক কবিতায় দেখিয়েছেন ছন্দের সুনিপুণ কারুকার্য তাই অভিজ্ঞ ছান্দসিক কবিগণ তাঁর কবিতা পাঠ করে মুগ্ধ হয়ে তাকে প্রশংসা করেছেন। কবি মাজেদুল হক ছন্দের কবিতা লিখতে গিয়ে সৃষ্টি করেছেন বেশ কিছু নব ছন্দরীতি, তাঁর লিখা প্রবন্ধ ” বাংলা ছন্দের রূপরেখা ” কবিতায় ছন্দের কারুকার্য ” ও ” নব ছন্দরীতি ” পড়লে বুঝা যায় তিনি ছন্দে কতটুকু পারদর্শী।

তিনি বেশ কিছু সনেট লিখেছেন যা বর্তমান কবিদের মধ্যে খুবই কম সংখ্যক কবি লিখতে পারেন, সে দিক দিয়েও তিনি সফলতার শীর্শে। প্রথাগত ছন্দের পাশাপাশি গদ্যছন্দেও তিনি দেখিয়েছেন সুনিপুণ দক্ষতা।

খুব শিগগিরই প্রকাশিত হবে কবির দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ, ছড়াগ্রন্থ, প্রবন্ধ গ্রন্থ ও উপন্যাস।

আপনার মতামত লিখুন :

 ফেসবুক পেজ

 আজকের নামাজের ওয়াক্ত শুরু

    নেত্রকোণা, ময়মনসিংহ, ঢাকা, বাংলাদেশ
    শুক্রবার, ৭ অক্টোবর, ২০২২
    ১১ Rabi' I, ১৪৪৪
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ৪:৩৭ পূর্বাহ্ণ
    সূর্যোদয়ভোর ৫:৫২ পূর্বাহ্ণ
    যোহরদুপুর ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ
    আছরবিকাল ৩:০৯ অপরাহ্ণ
    মাগরিবসন্ধ্যা ৫:৪০ অপরাহ্ণ
    এশা রাত ৬:৫৫ অপরাহ্ণ
কবি মোঃ শহিদ আলম এর ৩টি কবিতা

কবি মোঃ শহিদ আলম এর ৩টি কবিতা

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বে অনন্য উচ্চতায় বাংলাদেশ: এজেডএম সাজ্জাদ হোসেন

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বে অনন্য উচ্চতায় বাংলাদেশ: এজেডএম সাজ্জাদ হোসেন

বিরহী কবি মাজেদুল হক

বিরহী কবি মাজেদুল হক

নেত্রকোণার উত্তর জনপদের সাহসী ভাবনা!–রীনা হায়াৎ

নেত্রকোণার উত্তর জনপদের সাহসী ভাবনা!–রীনা হায়াৎ

কবিতা : পুরনো দিনের কথা, কবি মোঃ এনামুল হক

কবিতা : পুরনো দিনের কথা, কবি মোঃ এনামুল হক

কবি গোলাম জাকারিয়া এর দুটো কবিতা

কবি গোলাম জাকারিয়া এর দুটো কবিতা

সর্বশেষ সংবাদ সর্বাধিক পঠিত
 
উপদেষ্টা সম্পাদক : দিলওয়ার খান
সম্পাদক ও প্রকাশক : মুহা. জহিরুল ইসলাম অসীম  
অস্থায়ী কার্যালয় : এআরএফবি ভবন, ময়মনসিংহ রোড, সাকুয়া বাজার, নেত্রকোণা সদর, ২৪০০ ।
ফোনঃ ০১৭৩৫ ০৭ ৪৬ ০৪, বিজ্ঞাপনঃ ০১৬৪৫ ৮৮ ৪০ ৫০
ই-মেইল : netrokonajournal@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।