মোহনগঞ্জে বাপের বাড়িতে গাছে ঝুলছিল এক সন্তানের জননী

প্রকাশিত: ১:২৭ অপরাহ্ণ, জুন ৩, ২০২৪

কামরুল ইসলাম রতনঃ
নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে বাপের বাড়ির পেছেনে জাম্বুরা গাছ থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় মোছা. সাখী আক্তার (২৫) নামে এক সন্তানের জননীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে জামালগঞ্জ উপজেলার রাজনের স্ত্রী।

রোববার (২ জুন ) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার নাকডরা গ্রাম থেকে ওই গৃহবধূ ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়।

মোহনগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি ) মো. দেলোয়ার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন রবিবার দুপুরে।

সাখী আক্তার উপজেলার মৃত নাকডরা গ্রামের মৃত মাঈন উদ্দিনের মেয়ে। সাখীর ১৬ মাস বয়সী একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। সাখীর স্বামী মো. রাজন মিয়ার বাড়ি সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলায়।

পরিবারের লোকজনের দাবি- সাখী ৫-৬ মাস ধরে মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে। সেই থেকে বাবার বাড়িতে অবস্থান করছিলো।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পাঁচ বছর আগে পাশ্ববর্তী জামালগঞ্জ এলাকার রাজনের সাথে বিয়ে হয় সাক্ষীর । তাদের ১৬ মাস বয়সী একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। ৭-৮ মাস আগে রাজন দালালের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে গিয়ে কোন কাজ না পেয়ে ফেরত আসে। এতে বেশ কয়েক লাখ টাকা লোকশান হয়। এরপর থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে সাখী। মানসিক সমস্যা দেখা দেওয়ার পর বাবার বাড়ি মোহনগঞ্জে থাকতে শুরু করেন সাখী। এদিকে সুনামগঞ্জে একটি কোম্পানিতে কাজ শুরু করেন রাজন। গত শনিবার রাতে শিশু সন্তানের সাথে ঘুমায় সাখী। রাতের কোন এক সময় বাড়ির পেছনে জাম্বুরা গাছে ওড়না পেচিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য বকুল মিয়া জানান, খবর পেয়ে সকালে গিয়ে লাশ দেখে এসেছি। মেয়েটার (সাখী) শরীর শুকিয়ে কাঠ হয়ে গেছে। সে মানসিক ভারসাম্যহীন ছিল কিনা জানি না। পরিবারের লোকজন বলেছে- সাখী বেশ কয়েকমাস ধরে মানসিক ভারসাম্যহীন ছিল।

মোহনগঞ্জ থানার ওসি মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা সদর হাসপাতাল মর্গে কিছুক্ষণ আগে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।এ ঘটনায় আপাতত থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হবে।