সব
facebook netrokonajournal.com
স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে কিটো ডায়েটের মাধ্যমে দ্রুত ওজন কমানোর উপায় | নেত্রকোণা জার্নাল

স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে কিটো ডায়েটের মাধ্যমে দ্রুত ওজন কমানোর উপায়

প্রকাশের সময়:

স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে কিটো ডায়েটের মাধ্যমে দ্রুত ওজন কমানোর উপায়

ads1

সৌরভী খান মনিঃ স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে কিটো ডায়েটের মাধ্যমে দ্রুত ওজন কমানো সম্ভব। মাছ মাংশ খেয়েও কিভাবে আপনি এ ডায়েট মেইনটেইন করবেন তা জানাবো আজ। জানতে পারবেন কি কি খাওয়া যাবে। কারা এই ডায়েট করতে পারবেন না তাও জানবো…

আমাদের শরীরে শক্তির মূল উপাদান হলো গ্লুকোজ। শর্করা জাতীয় খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে দেহে প্রয়োজনীয় পরিমাণ গ্লুকোজ সরবরাহ করা হয়। দেহের বিভিন্ন অঙ্গে রক্ত সঞ্চালনের মাধ্যমে এই গ্লুকোজ শক্তি সরবরাহ করে। এভাবে যেটুকু গ্লুকোজ দরকার, তা ব্যবহৃত হওয়ার পর অতিরিক্ত অংশটুকু আমাদের শরীরে জমা হতে শুরু করে। আর এভাবেই আমাদের দেহে ওজন বাড়তে থাকে। খেয়াল করলে দেখা যায় যে, দেহের ওজন বাড়ানোর জন্য চর্বি জাতীয় খাদ্য যতটুকু দায়ী, তার থেকে বেশি দায়ী শর্করা জাতীয় খাদ্য। কিটো ডায়েটে আসলে এই শর্করা জাতীয় খাদ্য সেবনের মাত্রা একেবারে কমিয়ে দেওয়া হয়। আর বেশি জোর দেওয়া হয় চর্বি ও প্রোটিন রয়েছে, এমন খাদ্যের উপর।

আগেই বলা হয়েছে যে, আমাদের দেহে গ্লুকোজ শক্তির প্রধান উৎস। যখন শর্করা জাতীয় খাদ্য কম খাওয়া হয়, তখন এই প্রয়োজনীয় পরিমাণ গ্লুকোজ শরীর পায় না। শক্তি সরবরাহ করার জন্য শরীর তখন দেহের চর্বি ব্যবহার করতে শুরু করে। দেহের এই চর্বি বা ফ্যাট ভাঙনের মাধ্যমে তৈরি হয় কিটোন বডিজ। তখন গ্লুকোজের পরিবর্তে কিটোন বডিজ দেহে শক্তি সরবরাহ করে থাকে। এ প্রক্রিয়াকে বলা হয় কিটোসিস। আর এ থেকেই নামকরণ হয়েছে কিটো ডায়েট বা কিটোজেনিক ডায়েট। এভাবে শর্করা না পেয়ে দেহ অতিরিক্ত চর্বি পোড়াতে শুরু করে এবং আমাদের ওজনও দ্রুত হ্রাস পায়। এমন ডায়েট সূক্ষ্মভাবে অনুসরণ করলে মাত্র দুই সপ্তাহেই ওজন কমানো সম্ভব।

যেসব খাদ্য পরিহার করতে হবে :
১. এ তালিকায় প্রথমেই আসবে ভাত। বাঙালি হিসেবে আমাদের সবাই তিনবেলায় অন্তত দু’বার ভাত খেয়ে অভ্যস্ত। ঠিক এ কারণেই যতই শাকসবজি খাওয়া হোক না কেন, অনেকের ওজন কমতে চায় না।

২. ভাত বাদ দিলে সবার আগে ভাতের বদলে রুটি খাওয়ার চিন্তা আমাদের মাথায় আসবে। তবে চাল, আটা, ময়দা দিয়ে তৈরী সকল খাবারে প্রচুর পরিমাণে গ্লুকোজ থাকে। তাই আটা ও ময়দা দিয়ে তৈরী খাদ্য, যেমন– রুটি, পাস্তা, ব্রেকফাস্ট সিরিয়াল ইত্যাদি খাওয়া বাদ দিতে হবে।

৩. সকল প্রকার ফলমূল খাওয়া বাদ দিতে হবে। এটা সত্যি যে, অনেক ডায়েটে ফল খাওয়ার পেছনে জোর দেওয়া হয়। কিন্তু ফলে প্রচুর পরিমাণে চিনি বা গ্লুকোজ থাকে। তাই ফল খাওয়াও কমিয়ে দিতে হবে। তবে স্বল্প পরিমাণে জাম জাতীয় ফলগুলো খাওয়া যেতে পারে।

৪. ডাল, মটর এবং অন্যান্য দানা জাতীয় শস্য খাওয়া যাবে না।

৫. সবজির মধ্যে সকল প্রকার আলু, গাজর ও অন্যান্য টিউবার জাতীয় সবজি পরিহার করতে হবে।

৬. দুগ্ধজাত খাদ্য হিসেবে মাখন ও পনির খাওয়া গেলেও সরাসরি দুধ খাওয়া যাবে না।

৭. কোমল পানীয় ও অ্যালকোহলে প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে। তাই এগুলো খাওয়ার কথা চিন্তাই করা যাবে না।

যেসব খাবার খাওয়া যাবে :
১. সব ধরনের মাংস পরিমিত পরিমাণে খাওয়া যাবে।

২. সকল প্রকার মাছ, বিশেষ করে প্রচুর চর্বি বা তেল রয়েছে, এমন মাছ খাওয়া ভালো।

৩. খাদ্য তালিকায় মাখন ও ঘি যোগ করা যায়। রান্নায় অতিরিক্ত তেল ব্যবহার না করে ঘি ব্যবহার করা যেতে পারে।

৪. কিটো ডায়েটের খাদ্য তালিকার এক প্রধান খাবার হলো ডিম।

৫. মাখন ও ঘি ছাড়াও পনির খাওয়া যাবে।

৬. সকল প্রকার বাদাম ও বাদাম থেকে তৈরি অন্যান্য খাদ্য, যেমন পিনাট বাটার খাওয়া যাবে।

৭. খাদ্যে সয়াবিন তেলের পরিমাণ একেবারে কমিয়ে দেওয়া উচিত। আর সয়াবিনের পরিবর্তে রান্নার জন্য ভার্জিন অলিভ অয়েল ব্যবহার করা যেতে পারে।

৮. সকলপ্রকার সবুজ শাকসবজি, মটরশুঁটি, টমেটো, পেয়াজ ইত্যাদি খাওয়া যাবে।

৯. এ ডায়েটে খাদ্যে মশলা ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।

প্রকৃতপক্ষে ভাত, রুটি এগুলো আমাদের প্রধান খাদ্য। মাছ-মাংস, ডিম মূলত এদের সাথে অনুষঙ্গ হিসেবে আমরা খাই। তাই কিটো ডায়েট অনুসরণ করে ওজন কমাতে হলে ভাত ও রুটির কথা ভুলে যেতে হবে। সবুজ শাকসবজি, ডিম, মাছ-মাংস, পনির এগুলো দিয়ে নানারকম খাদ্যের রেসিপি থাকে। অন্তত দুই সপ্তাহ এরকম কিছু খাবার খেলে ওজন দ্রুত কমানো সম্ভব।

কিটো ডায়েটের যত উপকারিতা :
এ ডায়েট অনুসরণ করলে ওজন তো কমেই, তাছাড়াও এর আরো অনেক উপকারিতা রয়েছে। কিটো ডায়েটে ঠিকঠাক মেনে চললে শরীরে ক্ষুধা সৃষ্টিকারী হরমোন কম তৈরি হয়। যার ফলে ক্ষুধা কমে যায় এবং এতে করে শরীরের ওজনও কমতে শুরু করে।

আমাদের ত্বকের জন্যও কিটো ডায়েট অনেক উপকারী। যাদের ত্বকে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা বেশি, এ ডায়েট অনুসরণের ফলে তা একেবারে কমে যেতে পারে।

বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সারের চিকিৎসায় কিটো ডায়েট পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করা হয়। গবেষণা মোতাবেক, কেমোথেরাপি ও রেডিয়েশন থেরাপির পাশাপাশি এই ডায়েট ক্যান্সারের চিকিৎসায় কাজে আসে। এ ডায়েট অনুসরণ করে ক্যান্সার কোষ ও টিউমারের বৃদ্ধি কমিয়ে ফেলা যায়। তবে এ সেক্টরে গবেষণার ক্ষেত্র অনেক সীমিত। তাই এ ব্যাপারে আরো বিস্তর গবেষণা প্রয়োজন।

যাদের হৃদরোগের সমস্যা রয়েছে, এ ডায়েট তাদের বিশেষ কাজে আসতে পারে। বিভিন্ন প্রকার হৃদরোগের প্রধান কারণ হলো দেহে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যাওয়া। কিটো ডায়েট দেহের জন্য ক্ষতিকর কোলেস্টেরল লো-ডেনসিটি লিপোপ্রোটিনের পরিমাণ কমিয়ে দেয়। অপরদিকে দেহের জন্য উপকারী কোলেস্টেরল হাই-ডেনসিটি লিপোপ্রোটিনের মাত্রা বৃদ্ধি করে।

এই কিটো ডায়েট মূলত বিভিন্ন স্নায়ুরোগের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়। দেহে যে কিটোন তৈরি হয়, তা আমাদের মস্তিষ্কের জন্য বিশেষ উপকারী। আলঝেইমার ও মৃগী রোগের চিকিৎসায় রোগীদের এ ডায়েট অনুসরণের মাধ্যমে চিকিৎসা করা হয়ে থাকে।

এ ডায়েট সবার জন্য নয় :
কিটোজেনিক ডায়েট স্বল্প সময়ে ওজন কমানোর জন্য বেশ কার্যকরী হলেও এটি দীর্ঘ সময় ধরে অনুসরণ করা উচিত নয়। অনেকদিন ধরে এই খাদ্যাভাস মেনে চললে কিডনিতে পাথর, রক্তে প্রোটিনের আধিক্য, শরীরে খনিজ উপাদান ও ভিটামিনের অভাব এবং যকৃতে চর্বি জমতে পারে। এছাড়াও দীর্ঘমেয়াদী কিটো ডায়েটের কারণে ‘কিটো ফ্লু’ নামক এক বিশেষ রোগ হয়। যদিও এই ফ্লু বেশিদিন থাকে না, তবুও এর জন্য ডায়েটে পরিবর্তন আনা উচিত।

যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে ও ইনসুলিনের উপর নির্ভর করত

ads1

আপনার মতামত লিখুন :

 ফেসবুক পেজ

 আজকের নামাজের ওয়াক্ত শুরু

    নেত্রকোণা, ময়মনসিংহ, ঢাকা, বাংলাদেশ
    বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২
    ২ Rabi' I, ১৪৪৪
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ৪:৩৪ পূর্বাহ্ণ
    সূর্যোদয়ভোর ৫:৪৯ পূর্বাহ্ণ
    যোহরদুপুর ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ
    আছরবিকাল ৩:১৪ অপরাহ্ণ
    মাগরিবসন্ধ্যা ৫:৪৯ অপরাহ্ণ
    এশা রাত ৭:০৪ অপরাহ্ণ
মোহনগঞ্জ সমিতি ঢাকার উদ্যোগে হাসপাতালে অপারেশন থিয়েটারের যন্ত্রপাতি প্রদান

মোহনগঞ্জ সমিতি ঢাকার উদ্যোগে হাসপাতালে অপারেশন থিয়েটারের যন্ত্রপাতি প্রদান

মোহনগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট উদ্বোধন

মোহনগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট উদ্বোধন

খালিয়াজুরী স্বাস্থ্য সেবায় প্রথম বারের মতো যুক্ত হলো রক্ত প্রতিস্থাপন কার্যক্রম

খালিয়াজুরী স্বাস্থ্য সেবায় প্রথম বারের মতো যুক্ত হলো রক্ত প্রতিস্থাপন কার্যক্রম

নেত্রকোণায় তিন লাখ শিশুকে এ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে

নেত্রকোণায় তিন লাখ শিশুকে এ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে

কেন্দুয়ায় ৭ ডায়গনস্টিক সেন্টারকে অর্থদণ্ড, ৪টিতে সিলগালা

কেন্দুয়ায় ৭ ডায়গনস্টিক সেন্টারকে অর্থদণ্ড, ৪টিতে সিলগালা

কেন্দুয়ায় আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত

কেন্দুয়ায় আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত

সর্বশেষ সংবাদ সর্বাধিক পঠিত
 
উপদেষ্টা সম্পাদক : দিলওয়ার খান
সম্পাদক ও প্রকাশক : মুহা. জহিরুল ইসলাম অসীম  
অস্থায়ী কার্যালয় : এআরএফবি ভবন, ময়মনসিংহ রোড, সাকুয়া বাজার, নেত্রকোণা সদর, ২৪০০ ।
ফোনঃ ০১৭৩৫ ০৭ ৪৬ ০৪, বিজ্ঞাপনঃ ০১৬৪৫ ৮৮ ৪০ ৫০
ই-মেইল : netrokonajournal@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।